করিমগঞ্জ থানা পুলিশের তৎপরতায় ছাত্রলীগ নেতা নাজমুলের দুই হত্যাকারী গ্রেফতার


Kolom 24 প্রকাশের সময় : ২০ মে ২০২২, ৪:৫৫ অপরাহ্ণ
করিমগঞ্জ থানা পুলিশের তৎপরতায় ছাত্রলীগ নেতা নাজমুলের দুই হত্যাকারী গ্রেফতার
0Shares

সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলায় সন্ত্রাসীদের ছুরিকাঘাতে নিহত হয় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি নাজমুল হুদা। নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে পুরো জেলায়। করিমগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। শুরু হয় পুলিশের কর্মযজ্ঞ। হত্যাকাণ্ডের একদিন পর গত বৃহস্পতিবার (৫ মে) নাজমুলের মামী এডভোকেট মাহফুজা খাতুন মনি বাদী হয়ে ২৭ জন বিরুদ্ধে করিমগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলা রুজু হবার পর সহকারী পুলিশ সুপার (করিমগঞ্জ সার্কেল) মোঃ ইফতেখারুজ্জামান ও করিমগঞ্জ থানার ওসি শামসুল আলম সিদ্দিকী মামলার তদন্ত ভার অর্পণ করেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীনের ওপর। মামলার তদন্ত ভার হাতে পাবার পর জয়নাল আবেদীন শুরু করেন তদন্ত। বলাবাহুল্য যে, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন তার কর্মময় জীবনে অনেক জটিল ও স্পর্শকাতর মামলার তদন্ত করে আসামি গ্রেফতারে সক্ষম হয়েছেন এবং জেলা পুলিশ দ্বারা পুরস্কৃতও হয়েছেন।

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল হুদার হত্যা মামলার এজাহার নামীয় আসামিদের গ্রেফতার করতে সহকারী পুলিশ সুপার (করিমগঞ্জ সার্কেল) মোঃ ইফতেখারুজ্জামানের দিকনির্দেশনায় এসআই মাজাহারুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন মাঠে নামেন। ব্যবহার করেন তথ্য প্রযুক্তি। তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে গত বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দিবাগত রাতে এজাহার নামীয় আসামি করিমগঞ্জ উপজেলার কান্দাইল গ্রামের মৃত শফি মিয়ার পুত্র হিরন মিয়া ওরফে হিরা মিয়াকে (৪৫) সাভার থানা এলাকা থেকে এবং একই গ্রামের কিরন মিয়ার পুত্র সাকাকে (২০) রাজশাহী থেকে গ্রেফতার করেন। এর আগে ঘটনার পরপরই এজাহার নামীয় আসামি জিলু মিয়া ও সন্দেহভাজন হিসেবে একজনকে গ্রেফতার করেন।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জয়নাল আবেদীন জানান, ইতিমধ্যে হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য উদঘাটন করা হয়েছে এবং এজাহার নামীয় অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলমান রয়েছে।

করিমগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামসুল আলম সিদ্দিকী জানান, এজাহার নামীয় আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ত এজাহার নামীয়  তিনজন আসামি ও সন্দেহভাজন এক আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। হিরন ও সাকাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।