ছাত্র আন্দোলনের মধ্যে ক্ষমতার লোভ ঢুকেছে: মেনন

2 weeks ago
7:16 pm
4
বাংলাদেশ জাতীয় ছাত্র আন্দোলনের মধ্যে ক্ষমতার লোভ ঢুকেছে: মেনন

বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খাঁন মেনন এমপি বলেছেন, আজকে ছাত্র আন্দোলন অনেকখানি অবক্ষয় হয়েছে। ছাত্র আন্দোলনের মধ্যে ক্ষমতার লোভ ঢুকেছে। ভোগবাদীতা ঢুকেছে। এটা তাদের দোষ নয়। এটা রাজনীতির দোষ।

শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গন মিলনায়তনে বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী জেলা শাখার ১৫ তম জেলা কাউন্সিলে ভার্চুয়াল কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

রাশেদ খান আরো বলেন, রাজনীতির মধ্যে যখন দুবৃত্তায়ন ঘটে। সাম্প্রদায়িকতা ঘটে, তখন ছাত্র তরুণ সমাজের মধ্যে এমন ঘটনা ঘটবে খুবই স্বাভাবিক। তারপরও আজকে জাতি তাকিয়ে আছে ছাত্রদের দিকে। তারা নিশ্চই এই লড়াইয়ে পথ দেখাবে। তাই আমরা দেখতে পাচ্ছি।

দেশের চলমান প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বলেন, যখন দেশে দুবৃত্তায়ন ঘটে চলেছে। বিচারহীনতার সংস্কৃতি প্রবলভাবে উস্কে ধরেছে। ধর্ষণ মহামারী ব্যাধি আকারে রূপ নিয়েছে, তখন ছাত্ররাই এগিয়ে এসে লড়াই শুরু করেছে। আমাদের সময় কাল থেকে তারা অনেক বেশি সাহসী ভূমিকা পালন করছে।

বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ফারুক আহমেদ রুবেল বলেন, সারাদেশে যে ভয়ের রাজত্ব কায়েম হয়েছে, শিক্ষাব্যবস্থাসহ সকল সেক্টরে দুর্নীতি, লুটপাট, ধর্ষণের মহোৎসব চলছে ছাত্ররা জ্বলে না উঠলে এর বৃত্ত ভাঙ্গবে না। সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছাত্রদের সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

জেলা ছাত্র মৈত্রীর আহবায়ক মুহয়ী শারদ এর সভাপতিত্বে কাউন্সিলের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ফারুক আহমেদ রুবেল। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কমরেড এড. কাজী মাসুদ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক কমরেড আবু সাঈদ খান, জেলা শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কমরেড নজরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক তারিকুল ইসলাম, রাজনৈতিক শিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ইয়াতুননেছা রুমা, জেলা ছাত্র মৈত্রীর সাবেক সহসভাপতি ফরহাদুল ইসলাম পারভেজ।

এর আগে সভার শুরুতে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক সানিউর রহমান। সভা সঞ্চালনা করেন সংগঠনের যুগ্ম আহবায়ক ফাহিম মুনতাছির।

উদ্বোধনী সমাবেশ শেষে ফাহিম মুনতাসিরকে সভাপতি, সানিউর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক ও জুবায়েদ আহমেদ সাংগঠনিক সম্পাদক করে ২৫ সদস্য বিশিষ্ট জেলা কমিটি গঠন করা হয়।