করোনা মোকাবিলায় নতুন নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

7 days ago
7:20 pm
9
বাংলাদেশ জাতীয় করোনা মোকাবিলায় নতুন নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

করোনার সংক্রমণ রোধে অনুষ্ঠান-সমাবেশ বন্ধসহ ১১ দফা নির্দেশনা দেশের মানুষকে মেনে চলার অনুরোধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘একটা জিনিস সবাই লক্ষ রাখবেন। নতুন ভ্যারিয়েন্ট (ওমিক্রন) দেখা দিয়েছে। এটা খুব দ্রুত ছড়াচ্ছে। এক একটা পরিবারসহ আক্রান্ত হচ্ছে। সবাইকে বলবো, স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে চলতে। আমরা ইতোমধ্যে কিছু নির্দেশনা দিয়েছি, সেটা সবাই মেনে চলবেন। সেটাই আমি চাই।’

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) নবনির্মিত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। রাজধানীর আগারগাঁওয়ের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

সরকার প্রধান বলেন, আর যারা টিকা নেননি, তারা দ্রুত টিকা নিয়ে নেবেন। আমরা স্কুলের শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেওয়া শুরু করেছি। টিকা নিলে অন্তত জীবনে বেঁচে থাকা যায়। বিষয়টি অনুধাবনে সবাইকে অনুরোধ জানান তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের লক্ষ্য দেশের একটি মানুষও গৃহহীন ও ভূমিহীন থাকবে না। বিদ্যুৎ আমরা শতভাগ পৌঁছে দিয়েছি মানুষের ঘরে ঘরে। অবকাঠামোগত উন্নয়ন আমরা করে দিচ্ছি। সেই সঙ্গে খাদ্য নিরাপত্তা দিয়েছি। এখন আমাদের প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন উন্নত জীবন পায়, তার পদক্ষেপ নিয়ে প্রেক্ষিত পরিকল্পনাও তৈরি করে দিয়ে গেলাম। ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ করে দিয়েছি। যেন এই ব-দ্বীপটা আগামী দিনে জলবায়ুর অভিঘাত থেকে রক্ষা পেয়ে দেশের প্রজন্মের পর প্রজন্ম একটা সুন্দর জীবন পায়।

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি খাতে এগিয়ে নিয়ে যেতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ২১ বছর পরে আমরা যখন ক্ষমতায় এলাম দেখলাম স্কুলে বিজ্ঞান শিক্ষায় শিক্ষার্থী পাওয়া যায় না। কমার্স ও আর্টস পড়ে কিন্তু বিজ্ঞানের দিকে ঝোঁকটা কম, পড়ার আগ্রহটা কম। তখন আমরা ১২টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করি। সেই প্রকল্প আমরাই গ্রহণ করি। সেই সঙ্গে আইন পাস করে ৬টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণকাজ শুরু করি।

বিজ্ঞান শিক্ষার অনাগ্রহ সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরের পরে যারা অবৈধভাবে সংবিধান লঙ্ঘন করে সরকারে এসেছিল, তাদের এই অবৈধ ক্ষমতাকে বৈধ করার জন্য তারা সবথেকে বেশি দুর্নীতিতে সম্পৃক্ত হয়ে যায়। একটা এলিট শ্রেণি তৈরি করে। তাদের নানাভাবে অর্থশালী ও সম্পদশালী তৈরি করে। মেধাবী শিক্ষার্থীদের হাতে অস্ত্র ‍ও অর্থ তুলে দেয়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অস্ত্রের ঝনঝনানি ছিল। সেখানে রাষ্ট্র কিংবা সাধারণ জনগণের কি প্রয়োজন তাতে তাদের খেয়াল ছিল না। ক্ষমতাকে ভোগ ও কুক্ষিগত রাখাই ছিল তাদের মূল উদ্দেশ্য।