নানা উপায়ে কিশোরগঞ্জে চলছে বিদ্যুৎ চুরি

2 weeks ago
2:42 pm
491
অন্যান্য বিশেষ প্রতিবেদন নানা উপায়ে কিশোরগঞ্জে চলছে বিদ্যুৎ চুরি

হুকিং, মিটারে কারচুপি, বিদ্যুৎ তারের সংযোগ বিছিন্ন করে দেওয়াসহ নানা উপায়ে বিদ্যুৎ চুরি চলছে কিশোরগঞ্জে। দেদার বিদ্যুৎ চুরির ফলে সাধারণ মানুষের জনজীবন বিপর্যস্থ। এছাড়াও ইজিবাইকে অবৈধভাবে চার্জের ফলে বিদ্যুৎ এর অপচয় বাড়ছে। এসব বন্ধে সরকারীভাবে নিয়মনীতি এবং অভিযান পরিচালনা করলেও কার্যকর ভূমিকা প্রতিফলিত হচ্ছে না কিশোরগঞ্জে। নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হলেও অজ্ঞাত কারণে কিশোরগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড চুরি রোধ করতে পারছে না।

বিভিন্ন সরকারি দফতরেও অর্ধ কোটি টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে। তবে, সেই টাকা পাওয়ার ক্ষেত্রে নিশ্চয়তা রয়েছে। কিন্তু বেসরকারি ক্ষেত্রে যে বকেয়া রয়েছে সেটা পাওয়ার নিশ্চয়তা নেই। আবার বিদ্যুৎ বিল কেন বাংলায় হবে না এ নিয়ে মামলাও চলমান।

অনুসন্ধানে জানা গিয়েছে, কেউ কেউ বিদ্যুতের তার মিটার পর্যন্ত নিয়ে না গিয়ে সরকারী অনুমতি বিহীন ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও ইজিবাইকের সঙ্গে সরাসরি জুড়ছে। আবার কেউ বিদ্যুৎ সরবরাহের মূল তার (এসটি সংযোগ) থেকে বিদ্যুৎ চুরি করছে। বাড়ির বিদ্যুৎ মিটারেও হচ্ছে কারচুপি। ফলে, অনেক বাড়িতে গরমে ফ্রিজ, পাখা, এসি চললেও বিদ্যুৎ বিলের অঙ্কে খুব একটা হেরফের হচ্ছে না। ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিলের সংখ্যাও কম হয় না। এ নিয়ে কিশোরগঞ্জের সাধারণ মানুষদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ দিন দিন বাড়ছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় হাজারের উপরে ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও দেড় হাজার ইজিবাইক নিয়মিত শহরে চলাচল করছে। এগুলোর ব্যাটারী চার্জ দেয়ার জন্য শহরের বিভিন্ন স্থানে ১০০ থেকে ১৫০টি গ্যারেজ স্থাপন করা হয়েছে গোপনে এবং প্রকাশ্যে। প্রতিবার ব্যাটারী চার্জ দেয়ার জন্য গ্যারেজ মালিক রিক্সা প্রতি ১১০ টাকা আর ইজিবাইক প্রতি ১৫০ টাকা করে নিচ্ছেন। এক্ষেত্রেও বিদ্যুৎ সংযোগ অবৈধভাবে নিয়ে গ্যারেজ পরিচালনা করছেন গ্যারেজ মালিকরা। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) একাধিক কর্মকর্তা জানান, একটি ব্যাটারী চার্জ হতে সময় লাগে প্রায় ৭ থেকে ৮ ঘন্টা।

কিশোরগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ তারেক ছেফাতী জানান, আমি যোগদান করার পর থেকে বিদ্যুৎ চুরি রোধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছি। বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ ও তথ্য পেলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। বিদ্যুৎ চুরির ক্ষেত্রে কোন ছাড় নেই।