কিশোরগঞ্জে আলু চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক

2 months ago
3:18 pm
54
অন্যান্য পরিবেশ ও কৃষি কিশোরগঞ্জে আলু চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক

প্রতি বছর ধারাবাহিক লোকসান গুনে এবার আলু চাষে আগ্রহ হারিয়েছে কিশোরগঞ্জের আলু চাষীরা। পুরো জেলায় কৃষকদের মাঝে আলু চাষাবাদে অনাগ্রহ দেখা দেওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে সক্ষম হয়নি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। তবে কৃষি বিভাগের দাবী সরিষা আবাদের দিকে ঝুকে যাওয়ার কারণে এ বছর আলু চাষে লক্ষ্যমাত্র অর্জন হয়নি।

প্রায় ৬শত হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদ কম হওয়ার কারণে আলুর নির্ধারিত ফলন অর্জন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। তবে এবারের শীত মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আলুর বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা দেখছেন কৃষিবিদরা। তবে তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে অন্তত পুরো ফেব্রুয়ারী মাস।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জে এবার আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ হাজার ৩৫০ হেক্টর ও উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৫ হাজার ৬৫৪ মেট্রিক টন। ধান কাটার পর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় জেলায় এবার ব্যাপকভাবে আগাম আলু চাষের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন কৃষকরা। বীজ সংকট নেই বললেই চলে। বর্তমানে বাজারে ব্র্যাকের সরবরাহকৃত ৪০ কেজির প্রতি বস্তা অ্যাস্টেরিক, ক্যারেজ ও ডায়মন্ড জাতের আলু বীজ জেলার বিভিন্ন বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে।

কৃষিবিদরা জানান, এবার যদিও আলুর চাষাবাদ কম হয়েছে কিন্তু আবহাওয়া এখন পর্যন্ত আলুর অনুকূলে রয়েছে। ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফলন লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করবে।

বিএডিসির (আলু বীজ) উপ-পরিচালক মোঃ রুহুল আমিন জানান, আলু বীজের সংকট নেই। কোন কৃষকের যদি আলুর বীজের প্রয়োজন পড়ে তবে সে অতিসত্বর আমাদের সাথে যেন যোগাযোগ করে। এ বছর ‘এ’ গ্রেডের অ্যাস্টেরিক আলুর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে কেজি প্রতি ২৬.৫০ টাকা ও ‘বি’ গ্রেডের অ্যাস্টেরিক আলুর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৪.৫০ টাকা। অন্যান্য জাতের ‘এ’ গ্রেডের আলুর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৪.৫০ টাকা, ‘বি’ গ্রেডের আলুর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ২২.৫০ টাকা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোঃ সাইফুল আলম বলেন, আলু চাষে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এ বছর আলু বীজের সংকট নেই। আশা করছি আলুর বাম্পার ফলন হবে।